চিদাম্বরমের আইএনএক্স মিডিয়া মামলা কী?

প্রকাশ: ২২ আগস্ট ২০১৯     আপডেট: ২২ আগস্ট ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

পি চিদাম্বরমকে গ্রেফতার করে সিবিআই-এনডিটিভি

আইএনএক্স মিডিয়া দুর্নীতি মামলায় ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরমকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার চিদাম্বরম অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদন খারিজ করে দেন দিল্লি হাইকোর্ট। পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্টও তার আবেদনে জরুরি ভিত্তিতে শুনানি করতে রাজি হননি। এর ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই সিবিআই এবং ইডি আধিকারিকরা তার দিল্লির জোরবাগের বাড়িতে হানা দেন। 

প্রায় ২৭ ঘণ্টা পর কংগ্রেস দফতরে তিনি সবার সামনে আসেন। শেষমেষ সেই জোরবাগের বাড়ি থেকেই তাকে গ্রেফতার করা হয়। খবর এনডিটিভির

আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় চিদাম্বরম এবং তার ছেলে কার্তি চিদাম্বরম জড়িত বলে অভিযোগ ওঠার পর থেকে তদন্ত শুরু করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই) এবং এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। 

২০১৭ সালের ১৫ মে আইএনএক্স মিডিয়া গ্রুপে বিনিয়োগ নিয়ে অনিয়মের অভিযোগে এফআইআর দায়ের করে সিবিআই। সেখানে বলা হয়,  ফরেন ইনভেস্টমেন্ট প্রোমোশন বোর্ড (এফআইপিবি) আইএনএক্স মিডিয়াকে  ২০০৭ সালে বিদেশ থেকে ৩০৫ কোটি টাকার তহবিল পাওয়ার জন্য ছাড়পত্র দিয়েছিল। সেই সময়েই কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন পি চিদাম্বরম।

এফআইআরের ভিত্তিতে প্রিভেনশন অব মানি লন্ডারিং অ্যাক্টে চিদাম্বরমের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করে ইডি। দুটি মামলায় চিদাম্বরম এবং তার ছেলে কার্তির নাম উল্লেখ করা হয়।

ইডি পাশাপাশি কোম্পানির দুই প্রতিষ্ঠাতা প্রাক্তন মিডিয়া ব্যারন পিটার মুখার্জি এবং ইন্দ্রাণী মুখার্জির বিরুদ্ধেও প্রিভেনশন অব মানি লন্ডারিং অ্যাক্টে মামলা করে। এই মামলায় অভিযুক্ত করা হয় আরও বেশ কয়েকজনকে। 

২০১৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সিবিআই কার্তিকে গ্রেফতার করেছিল। পরে তিনি জামিনে ছাড়া পান। ইডি তার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে। 

ইডিকে দেওয়া ইন্দ্রাণীর বক্তব্যের ভিত্তিতে গ্রেফতার কার হয় কার্তিকে। তিনি জানিয়েছিলেন, এফআইপিবি ছাড়পত্র লঙ্ঘনের অভিযোগের বিষয়টি রফাদফা করার জন্য এই দম্পতি কার্তির ১০ মিলিয়ন ডলারের দাবি মেনে নিয়েছিলেন।