‘কয়েকটি সিনেমা রিমেক করার পরিকল্পনা করছি'

প্রকাশ: ১২ জুন ২০২০     আপডেট: ১২ জুন ২০২০   

বিনোদন প্রতিবেদক

শাকিব খান

শাকিব খান

'খান'-এর মাহাত্ম অনেক। বিশেষ করে ভারতীয় হিন্দি ছবিতে 'ত্রয়ী খান'-এর দাপটে পথচলা তাই প্রমাণ করে। ভারতীয় হিন্দি সিনেমার মতো বাংলাদেশের খান উপাধি নিয়ে অনেকেই তারকা খ্যাতি পাওয়ার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তারকাশিল্পী হতে পারেননি। ব্যতিক্রম কেবল একজন। তিনি শাকিব খান। তাকে এখন কিং খান, সুপারস্টার বা ঢাকার নবাব বলেও ডাকেন। দুই দশকের অভিনয় জীবনে তিনি উপহার দিয়েছেন অসংখ্য দর্শকপ্রিয় সিনেমা। বিশেষ করে 'আমার স্বপ্ন তুমি', 'কোটি টাকার কাবিন', 'চাচ্চু', 'প্রিয়া আমার প্রিয়া', 'ভালোবাসলেই ঘর বাঁধা যায় না', 'হিরো দ্য সুপারস্টার', 'শিকারী', 'নবাব' ছবির মাধ্যমে দর্শকদের জাত চিনিয়েছেন তিনি। গড়েছেন অন্যরকম উচ্চতা। অনেক মেধা ও পরিশ্রম দিয়ে এ অবস্থানে তাকে আসতে হয়েছে। এই তো সেদিনের কথা। করোনাকালের আগে কাজ নিয়ে বেশ ব্যস্ত ছিলেন তিনি। দেশে ও দেশের বাইরে শুটিং নিয়ে দম ফেলানোরও ফুসরত ছিল না তার। কিন্তু এখন সব হিসাব-নিকাশ পাল্টে গেছে। শাকিব খান এখন আর আগের মতো ব্যস্ত নেই। কেমন কাটছে করনাকালীন সময়? জানতে চাইলে শাকিব বলেন, 'সবার মতো আমারও দিন কেটে যাচ্ছে।

এখন সারা বিশ্বের মতো আমরা সবাই একই সমস্যায় ভুগছি। এক অদৃশ্য শত্রুর সঙ্গে লড়াই করছি। তাই এ লড়াইটা অনেক কঠিন। করোনাকালে অনেক অবসর মিলেছে সত্যি, কিন্তু ক'জন তা কাজে লাগাতে পেরেছে। আমরা কি নতুন কোনো সৃষ্টির কথা ভাবতে পারছি? আমাদের চিন্তা, মনন, মেধা সৃষ্টিশীল মন যেন কালো মেঘে ছেয়ে গেছে। প্রায় তিন মাস বাসায় আছি। বাসায় বসে সময় কাটানো কঠিন হলেও আমার জন্য মোটেও কঠিন ছিল না। প্রথম দিকে একটু অবসর থাকলেও এখন ব্যস্ত সময় পার করছি। এরই মধ্যে করোনা পরবর্তী সময় কী কী কাজ করব তার পরিকল্পনা করেছি। আর যেহেতু স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ শুরু হয়েছে। আমিও শুরু করব কিছুদিনের মধ্যে।' করোনাকালে চলচ্চিত্র শিল্পের অনেক ক্ষতি হয়েছে। অনেকেই বেকার হয়ে পড়েছেন। প্রায় তিন মাস শুটিং, ডাবিং বন্ধ ছিল। চলচ্চিত্রের এই সংকট কাটাতে শাকিবের পারিশ্রমিক কমানোর কথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ঢালিউডের শীর্ষ নায়কের এমন কথায় অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।এ প্রসঙ্গে শাকিব খান বলেন, 'আমি কাউকেই আমার পারিশ্রমিক কমানোর কথা বলিনি। কে আমাকে কত টাকা পারিশ্রমিক দিয়ে সিনেমা করাবে, এটা এখন বড় বিষয় নয়। তারচেয়ে বড় কথা হলো, আমি নিজে আদৌ তাদের সঙ্গে কাজ করব কিনা সেটাই প্রশ্ন। আর আমি কত টাকা পারিশ্রমিক নিই এটাও কারও কাছে কখনই বলিনি। করোনা পরবর্তী সময়ে হলিউড, বলিউড থেকে পৃথিবীর সব ইন্ডাস্ট্রির সিনেমায় পরিবর্তন আসবে। আমাদেরও ব্যতিক্রম হবে না। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে আমি আমার মতো করে কাজ করে যাব। হয় তো আমার পারিশ্রমিক নিয়ে কথাও উঠবে। আমার কাছে মনে হচ্ছে একটি মহল অকারণেই পারিশ্রমিক নিয়ে জল ঘোলা করছে।

পরিস্থিতিই বলে দেবে কী করতে হবে। এটা নিয়ে এখনই বেশি ভাবছি না।' এখন 'ইউটিউব' অন্যতম বিনোদন মাধ্যম। ভিউয়ের সংখ্যা কিংবা মতামতের বার্তা সবই এখানে পাওয়া যায়। এ কারণে অনেকে তারকাশিল্পীর মতোই শাকিব খানও তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল খুলেছেন। ইউটিউবের মাধ্যমে কাজের আপডেট, শুটিং দৃশ্য, ব্যক্তিগত খুঁটিনাটি সবই তিনি শেয়ার করছেন ভক্তদের সঙ্গে। শাকিব খান বলেন, সারা বছর ব্যস্ত সময় কাটে। যে জন্য নিজের ইউটিউব চ্যানেলের দিকে মনোযোগ দেওয়া আমার জন্য অসম্ভব হয়ে পড়ে। করোনার এই ছুটিতে এ চ্যানেলটিতে অনেক কাজের সুযোগ হয়েছে। চ্যানেলটিতে নতুন কী কী কনটেন্ট দেওয়া যায় তা ভেবেছি। নতুন আরও কয়েকটি ভাবনা যোগ করেছি। আশা করছি, খুব শিগগির নতুন করে চ্যানেলটি সাজাতে পারব। শাকিব আরও বলেন, যেহেতু আমার এই চ্যানেল নিয়ে আমার ভক্তদের অনেক প্রত্যাশার কথা শুনেছি। তাই এখন থেকে সবাই আমার অভিনীত বিভিন্ন সিনেমার গান, ট্রেলার কিংবা টিজার দুটি ইউটিউব চ্যানেলেই দেখতে পাবেন।

একটা সময় ঈদ মানেই ছিল শাকিব খানের ছবি। অনন্ত গত ১৫ বছর ধরে একই ধারা অব্যাহত ছিল। কিন্তু সেই ধারায় ছন্দপতন করে দিয়েছে করোনাভাইরাস। গত ১৫ বছরে এবারই প্রথম, ঈদে শাকিব অভিনীত কোনো ছবি মুক্তি পায়নি। শাকিব বলেন, আমরা মহামারির মধ্যে আছি। এখনই আমি ছবিগুলোর মুক্তি নিয়ে ভাবছি না। মানুষই যদি না দেখতে পারে, তাহলে সেই সিনেমা মুক্তি দিয়ে কী হবে? সবার আগে জীবন, পরে সিনেমা। আর এটা তো শুধু বাংলাদেশেই নয়, গোটা বিশ্বেই একই হাল। সব থমকে আছে। গত কয়েক সপ্তাহ বিশ্বের কোথাও কোনো নতুন ছবি মুক্তি পায়নি। সবখানে বাঁচার লড়াই চলছে। এই দুঃসময় কেটে গেলে, সৃষ্টিকর্তা যদি আমাকে বাঁচিয়ে রাখেন তাহলে অনেক ঈদ আসবে জীবনে। ছবিও মুক্তি পাবে।

এদিকে গত ৭ জুন ভয়েজ টিভির নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ পেয়েছে শাকিবের 'বিদ্রোহী' ছবির অফিসিয়াল টিজার। যদিও এই ছবির নাম শুরুতে ছিল 'একটু প্রেম দরকার'। পরে গল্পের প্রয়োজনে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে 'বিদ্রোহী'। শাপলা মিডিয়ার ব্যানারে নির্মিত এই ছবিতে শাকিবের সহশিল্পী বুবলী। ছবিটি নিয়ে শাকিব বলেন, দেশে সাধারণ ছুটির আগেই ছবিটির সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই ছবিটি সারাদেশে একযোগে মুক্তি পাবে। হয়তো এটিই হবে আমার করোনা পরবর্তী মুক্তি পাওয়া প্রথম চলচ্চিত্র। নিজের আগামীর পরিকল্পনা নিয়ে এ অভিনেতা বলেন, কালজয়ী কয়েকটি সিনেমার রিমেক করার পরিকল্পনা করছি। এখনও পেপার ওয়ার্ক চলছে। দেশের বাইরে আমার অনেক বন্ধু রয়েছে। যদি লাগে তাদেরও সহযোগিতা নেব। ভাবছি কাজের পরিধি আরও বাড়াবে।