আয়োজনহীন সুবীর নন্দীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী

প্রকাশ: ০৮ মে ২০২০   

বিনোদন প্রতিবেদক

বাংলা গানের কিংবদন্তি গায়ক  সুবীর নন্দী চলে যাওয়ার বছরপূর্তি আজ। কিন্তু জনপ্রিয় এ শিল্পীর চলে যাওয়ার দিনে কোন আয়োজনই রাখা হয়নি। কি করেই বা রাখবে। করোনা ভাইরাসের কারণে ভারাক্রান্ত পৃথিবী। সব কিছুই যেনো ওলট-পালট হয়ে আছে। তাই শিল্পীর চলে যাওয়ার দিনে কেবল বিষাদ সঙ্গী সঙ্গীত পরিবারে। 

সুবীর নন্দীর মেয়ে  ফাল্গুনী নন্দী ঢাকায় থাকলেও  স্ত্রী পূরবী নন্দী অবস্থান করছেন যুক্তরাষ্ট্রে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেলো তাদের পরিবারের তিন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।  আক্রান্তদের  একজন আবার জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থেকে একজন মারাও গেছেন।

সব পরিস্থিতি বিবেচনা করেই  এই প্রিয় শিল্পীকে স্মরণের কোনো আয়োজন রাখা হয়নি। 

চলচ্চিত্রের গানের জন্য জনপ্রিয়তা অর্জনকারী সুবীর নন্দী আবহমান বাংলার লোকগান, আধুনিক গান এবং নজরুল সংগীত শ্রোতাদের কাছেও সমান বরেণ্য। মহানায়ক, শুভদা, শ্রাবণ মেঘের দিন, মেঘের পরে মেঘ ও মহুয়া সুন্দরী চলচ্চিত্রে গান গেয়ে পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন তিনি।

সুবীর নন্দী ১৯৫৩ সালের ১৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং থানার নন্দীপাড়ায় এক কায়স্থ সংগীতপ্রেমী পরিবারে জন্ম নেন। তার ডাক নাম বাচ্চু। তার পিতা সুধাংশু নন্দী ছিলেন একজন চিকিৎসক। তার মা পুতুল রানীও গান গাইতেন। মায়ের কাছেই হয় তার সংগীতের হাতেখড়ি।

সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গান গাইতে পছন্দ করতেন সুবীর নন্দী। বেতার, টেলিভিশন এবং চলচ্চিত্রের প্লেব্যাকে তার অসংখ্য জনপ্রিয় গান রয়েছে। সংগীতচর্চার পাশাপাশি ব্যাংকে চাকরি করতেন তিনি। ২০১৯ সালের ৭ মে ৬৫ বছর বয়সে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে চলে যান ওই বছরেই সংগীতে অবদানের জন্য একুশে পদকে ভূষিত এই শিল্পী।