কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে মোবাইল কেনাকে কেন্দ্র করে আবদুর রউপ নয়ন (৩৮) নামের এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। 

উপজেলার জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের নোয়াগ্রামে বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নয়ন ওই গ্রামের মৃত আবদুল গফুরের ছেলে ও পেশায় রাজমিস্ত্রী ছিলেন। 

তার তিন ছেলে ও নয় মাস বয়সি একটি মেয়ে রয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার বিকেলে ফুলগ্রাম থেকে এক যুবক মোবাইল বিক্রির জন্য আবদুর রউপ নয়নের বাড়িতে আসে। এ সময় নয়নের আত্মীয় আবুল কালাম নামের এক যুবক মোবাইল ক্রয় করতে বাধা দেয়। এ নিয়ে তর্কের এক পর্যায়ে আবুল কালাম প্রকাশ্যে নয়নকে হুমকি দিয়ে চলে যায়। বুধবার সকালে আবদুর রউপ নয়ন বাড়ির পশ্চিম পাশের পুকুর পাড়ে গেলে আবুল কালাম ছুটে আসে এবং হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে নয়নকে বুকের বাম পাশে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এসময় নয়নের চিৎকার শোনার পর বাড়ি থেকে তার বোন আসমা আক্তার ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কিন্তু নেওয়ার পরই চিকিৎসক সোলেমান বাদশা আবদুর রউপ নয়নকে মৃত ঘোষণা করেন। হামলাকারী আবুল কালাম একই বাড়ির আবুল কাসেমের ছেলে। 

আবদুর রউপ নয়নের মা সবুরা বেগম আহাজারি করে বলেন, আমার চার নাতির কি হবে? কে করবে তাদের লালন-পালন। আমার ছেলে রাজমিস্ত্রী ছিল।

নিহত নয়নের মামত বোন আনোয়ারা বেগম বলেন, আমি খবর শোনার পর বাড়িতে আসি। নয়নকে যে ছুরি মেরে হত্যা করেছে আমি তার ফাঁসি চাই।

চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, আমরা খবর শোনার পর লাশ উদ্ধার শেষে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।