যেসব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা নেই, পেমেন্ট গেটওয়ে প্রতিষ্ঠানের কাছে তাদের ক্রেতাদের আটকে থাকা টাকা দ্রুত ফেরত দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাল কমার্স সেল থেকে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

গত ৩০ জুন ই-কমার্স নির্দেশিকা জারি করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এতে বলা হয়েছে, গ্রাহক পণ্য বুঝে পাওয়ার পর বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান টাকা পাবে। তবে বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান পণ্য সরবরাহ না করলে টাকা কীভাবে ক্রেতার কাছে ফেরত যাবে, সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। একটি এসক্রো সার্ভিস চালুর কথা বলা হলেও তা এখনও চালু হয়নি। ফলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অনেক গ্রাহকের টাকা পেমেন্ট গেটওয়ে প্রতিষ্ঠানের কাছে আটকে গেছে। জানা গেছে, ৩০ জুনের পর থেকে গত অক্টোবর পর্যন্ত পেমেন্ট গেটওয়ে কোম্পানিগুলোর কাছে ২১৪ কোটি টাকা আটকে পড়েছে। এসব টাকার একটি বড় অংশ পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ ফ্রিজ করে রাখার জন্য বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটকে অনুরোধ করে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এই টাকা ছাড় করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সিআইডিকে অনুরোধ করে। পাশাপাশি আইন মন্ত্রণালয়েরও মতামত নিয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আইন মন্ত্রণালয়ের ইতিবাচক মতামত পাওয়ার পরই কেন্দ্রীয় ব্যাংকে চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তবে চিঠিতে বলা হয়েছে, যেসব প্রতিষ্ঠানের নামে কোনো মামলা নেই, তাদের গ্রাহকদের টাকা দ্রুত ফেরত দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ফলে এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের টাকা যত দ্রুত সম্ভব ফেরত দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করতে হবে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকে খোঁজ নিলে সংশ্নিষ্ট বিভাগের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা গতকাল পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকে পৌঁছেনি। এ ধরনের নির্দেশনা এলে পেমেন্ট গেটওয়ে কোম্পানিগুলোকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে নির্দেশনা দেওয়া হবে। গ্রাহকদের টাকা ফেরত দিতে বেশি সময় লাগবে না বলে জানান ওই কর্মকর্তা।