গাজীপুরের শ্রীপুর ও কালিয়াকৈর থানায় ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে বিএনপি ও ছাত্রদলের ৩৪ নেতাকর্মীর নামে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার সংশ্লিষ্ট থানায় এ হামলা হয়।

কালিয়াকৈর থানায় হওয়া মামলায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক পারভেজ আহম্মেদ, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির শ্রমবিষয়ক সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবীর খান, পৌর বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইজুদ্দিন, পৌর কাউন্সিলর সারোয়ার হোসেন আকুলসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। এ ছাড়া ৫০-৬০ জনকে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করা হয়েছে।

এ মামলার বাদী পৌর আওয়ামী লীগের চন্দ্রায় অবস্থিত কার্যালয়ের সহকারী আব্দুল মান্নান শেখ। তাঁর অভিযোগ, সোমবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে কালামপুর এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এসে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। এ সময় ১৪-১৫টি ককটেল বিস্ফোরণে আতঙ্ক দেখা দেয়।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আকবর আলী খান বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মামলাটি নেওয়া হয়। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

শ্রীপুর থানায় করা মামলার বাদী উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মাহবুব হোসেনের ভাষ্য, সোমবার রাত পৌনে এগারোটার দিকে শ্রীপুর পৌর শহরের মাস্টারবাড়ি এলাকা থেকে ফুটবল খেলা দেখে ছাত্রলীগের কয়েক নেতাকর্মী মোটরসাইকেলযোগে মাওনা চৌরাস্তার দিকে যাচ্ছিলেন। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গিলারচালা এলাকায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা তাঁদের ওপর হামলা চালায়। উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক জিয়াউল করিম রিফাত মোড়লের নেতৃত্বে এ ঘটনা ঘটে বলে দাবি তাঁর।

তবে জিয়াউল করিম রিফাত মোড়ল বলেন, 'এ সম্পর্কে আমার কিছুই জানা নেই। আমি তখন এলাকাতেও ছিলাম না। কোনো নেতাকর্মীও এমন ঘটনা ঘটাননি।'

শ্রীপুর থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে মামলায় ২৩ জনকে আসামি করা হয়েছে। তাঁরা কয়েকটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধারও করেছেন।