কিশোরগঞ্জের হাওরেও দেখা জলস্তম্ভের (Water Spout) মিলেছে। এবারই প্রথম এই হাওরে জলস্তম্ভ দেখা গেল। তবে জলস্তম্ভের কারণে কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি বলে জানান এলাকাবাসী।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটের দিকে কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার অলওয়েদার সড়কের ছিলনী ব্রিজ থেকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকের হাওরে এই টর্নেডো বা জলস্তম্ভ দেখতে পান স্থানীয় লোকজন।

স্থানীয় বাসিন্দা গোলাম মোস্তফা, আবু হানিফসহ একাধিক বাসিন্দা জানান, মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ছয়টার দিকে ছিলনী ব্রিজ থেকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকের হাওরে টর্নেডো বা জলস্তম্ভ তৈরি হয়। তখন বেশ কিছু সময় জল ও আকাশ বরাবর জলরাশির ঘূর্ণমান দেখা যায়।

এর আগে গত দুই দশকেও হাওরে এমন টর্নেডো দেখা যায়নি। তবে সম্প্রতি কিছু দিনের ব্যবধানে দেশের কয়েকটি হাওরে এমন জলস্তম্ভ দেখার খবর পাওয়া গেছে। 

হাওরের পাটুলি এলাকা থেকে রাজীব পাল নামে এক ব্যক্তি টর্নেডো বা জলস্তম্ভ দেখে অবাক হন। তিনি ছাড়াও এই এলাকারা আরও অনেকে এই টর্নেডো বা জলস্তম্ভ দেখেছেন বলে জানান।

জানা গেছে, জল দিয়ে মোড়ানো বাতাসের তৈরি টর্নেডোর ফলে এটি সৃষ্টি হয়। জলভাগের ওপর শক্তিশালী টর্নেডো সৃষ্টি হলে প্রবল বেগে ঘূর্ণমান বায়ুর টানে জলভাগের জল টর্নেডোর কেন্দ্র বরাবর স্তম্ভাকারে ঘুরন্ত অবস্থায় ওপরে উত্থিত হয়। একে জলস্তম্ভ (Water Spout) বলে। তবে গ্রামাঞ্চলে এটি ‘এটি হাতির শুঁড়’ বা ‘মেঘশূর’ নামে পরিচিত।