হোটেল ওলিওতে বিস্ফোরণ: ১৪ জনকে আসামি করে চার্জশিট হচ্ছে

প্রকাশ: ১৪ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনাল— ফাইল ছবি

রাজধানীর পান্থপথের হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনালে অবস্থান নিয়ে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচিতে হামলার ছক করেছিল নব্য জেএমবি। ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত শেষ হয়েছে। হামলা পরিকল্পনায় যুক্ত ১৪ জনকে আসামি করে চার্জশিট দাখিল করছে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসি)। সন্ত্রাসবিরোধী আইনে এ মামলার চার্জশিট অনুমোদনের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট ধানমণ্ডির ৩২ নম্বর সড়কে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানের মধ্যেই ৩০০ মিটার দূরে পান্থপথের হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনালে অভিযান চালায় সিটিটিসি। এক পর্যায়ে হোটেল থেকে বিকট বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ পাওয়া যায়। এতে হোটেলের চতুর্থ তলার রাস্তার দিকের অংশের দেওয়াল ও গ্রিল ধসে নিচে পড়ে। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, সাইফুল ইসলাম নামে নব্য জেএমবির এক সদস্য আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া না দিয়ে সুইসাইডাল ভেস্ট দিয়ে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আত্মঘাতী হয়েছে।

গত রোববার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে সিটিটিসিপ্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, চার্জশিটে যে ১৪ জন আসামি হচ্ছে তারা সবাই নব্য জেএমবির সদস্য এবং সবাই কারাগারে আছে। তাদের মধ্যে ১০ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, হামলার ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী আকরাম হোসেন নিলয়। তারা নিজ নিজ কাজ ভাগ করে নিয়েছে। তাদের অর্থ জোগানদাতা ছিল তানভীর, তার স্ত্রী এবং নিলয়ের মা-বাবা ও বোন। বোমার সরঞ্জাম সরবরাহ করে কাশেম, শহিদ মিস্ত্রি ও ছোটন। সরবরাহ করা ওই সরঞ্জাম দিয়ে বোমা তৈরি করেছিল মামুন। অন্য চারজন বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সহায়তাকারী ও আশ্রয়দাতা।

যারা আসামি হচ্ছে: সাইফুল ছাড়াও আসামির তালিকায় রয়েছে আকরাম হোসেন ওরফে নিলয়, তার মা সাদিয়া হোসেন লাকি, বাবা আবু তুরাব খান, বোন তাজরীন খানম শুভ, তানভীর ইয়াসীন কবির, তার স্ত্রী হুমায়রা জাকির নাবিলা, আব্দুল্লাহ আয়চান কবিরাজ, আবুল কাশেম ফকির, লুলু সরদার ওরফে শহিদ মিস্ত্রি, তাজুল ইসলাম ছোটন, নাজমুল হাসান মামুন, আবদুল্লাহ, কামরুল ইসলাম শাকিল ও তারেক মোহাম্মদ আদনান।