বেন স্টোকস ও বেন্ডন ম্যাককালামের জুটিতে ইংল্যান্ড টেস্ট দল নতুন দিগন্তের উন্মোচন করে দিয়েছে। মাত্র চার টেস্টের জুটি; তাতেই নতুন ব্রান্ড দাঁড় করিয়ে ফেলেছেন তারা।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচেই ইংলিশরা তিনশ’ ছোঁয়া রান তাড়া করেছে। এবার ভারতের বিপক্ষে রেকর্ড ৩৭৮ রানের পাহাড় মুহূর্তে টপকে গেল। জয় তুলে নিল ৭ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে। ভারতকে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় থেকে বঞ্চিত করলো।

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এটি অষ্টম সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড। বিশাল এই রান তাড়া করতে জো রুট এবং জনি বেয়ারস্টো ওয়ানডের মতো ব্যাটিং করেছেন। 

দুই ইনিংসে দুর্দান্ত দুই সেঞ্চুরি করেছেন বেয়ারস্টো। ছবি: এএফপি

টেস্ট নেতৃত্ব ছেড়ে দেওয়া রুট খেলেছেন ১৭৩ বলে হার না মানা ১৪২ রানের ইনিংস। ১৯টি চার এবং একটি ছক্কা মেরেছেন তিনি। বেয়ারস্টো ১৪৫ বলে ১৫ চার ও এক ছক্কায় ১১৪ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন।

অথচ ম্যাচটা ভারতের হাতের মুঠোয় ছিল। গত বছর পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-১ এ এগিয়ে থাকায় এবার ড্র করলেই ঐতিহাসিক সিরিজ জয়; এমন ম্যাচে প্রথম ইনিংসে তুলেছিল ৪১৮ রান। ব্যাট হাতে ঋষভ পান্ত (১১১ বলে ১৪৬) এবং রবিন্দ্র জাদেজা (১৯৪ বলে ১০৪) দলকে নেতৃত্ব দেন।

জবাব দিতে নেমে ইংল্যান্ড ২৮৪ রানে অলআউট হয়ে যান। জনি বেয়ারস্টো ১০৪ রানের ইনিংস খেলেন। জো রুট (৩১) ও স্যাম বিলিংস তার সঙ্গে জুটি গড়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। বুমরাহ শুরুর তিন এবং মোহাম্মদ সিরাজ শেষ দিকের চার উইকেট নিয়ে দলকে ১৩২ রানের লিড এনে দেন।

অসাধারণ সেঞ্চুরি করেছেন রুট। দলকে জেতাতে গড়েছেন ২৬৯ রানের জুটি। ছবি: এএফপি

জিততে আর কী লাগে? বেন স্টোকস প্রমাণ করলেও দলটা যখন তার আরও অনেক কিছুই লাগে! তা না হলে সহজ হয়ে ওঠা উইকেটে ভারত দ্বিতীয় ইনিংসে ২৪৫ রানে অলআউট হয়! তাও আবার চেতেশ্বর পূজারার ১৬৮ বলে ৬৬ রানের দৃঢ়তার পর। 

কিন্তু অন্যরা ওই দৃঢ়তার ফল ঘরে তুলতে পারেনি। ঋষভ পান্ত কেবল ৫৭ করেছিলেন। বিরাট কোহলি, শ্রেয়াস আয়ার ব্যর্থ হয়েছেন। বড় রানের লক্ষ্যে নেমে ঘাবড়ে যায়নি ইংল্যান্ড। বরং দুই ওপেনার অ্যালেক্স লিস (৬৫ বলে ৫৬) এবং জ্যাক ক্রলি (৭৬ বলে ৪৬) ঝাণ্ডা উচিয়ে ধরেন। পরে দ্রুত তিন উইকেট পড়লেও ২৬৯ রানের জুটি গড়ে দলকে জয় এনে দিয়েছেন রুট-বেয়ারস্টো।