আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ সেলিম এবং তার ভাই গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক।

গুলশান থানার দুটি ও রমনা থানার একটি মামলায় আদালতে হাজির হন দিলদার হোসেন। একই সঙ্গে ধানমন্ডি ও উত্তরা থানার দুটি মামলায় আদালতে হাজির হয়ে আত্মসমর্পণ করেন তার দুই ভাই।

ধর্ষণের অভিযোগে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী গত ৬ মে বনানী থানায় আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদসহ পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করেন।

এই মামলা ধামাচাপা দিতে বিপুল অর্থ খরচের চেষ্টার অভিযোগ উঠলে তখন আপন জুয়েলার্সের মালিকদের বিরুদ্ধে অর্থ পাচার ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ পাওয়া যায়।

পরে চোরাচালানের মাধ্যমে প্রায় ১৫ দশমিক ৩ মণ স্বর্ণ ও সাত হাজার ৩৬৯টি হীরার অলঙ্কার এবং এসব মূল্যবান সামগ্রী কর নথিতে গোপন রাখায় আপন জুয়েলার্সের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে গত ১২ আগস্ট পাঁচটি মামলা হয়। রাজধানীর গুলশান, ধানমণ্ডি, রমনা ও উত্তরা পূর্ব থানায় এসব মামলা করে শুল্ক্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর।