আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ শুরু করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী ১৭ জুলাই থেকে ধারাবাহিকভাবে এই সংলাপ শুরু হবে। ৩১ জুলাইয়ের আগেই সব দলের সঙ্গে সংলাপ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে। প্রতিদিন ৪টি করে মোট ৩৯টি দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে এই সংলাপে।

বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংলাপের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ। 

এ  সময় জানানো হয়, শেষ দিন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সঙ্গে সংলাপের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। অপরদিকে বিএনপির সঙ্গে ২০ জুলাই সংলাপের তারিখ নির্ধারণ করেছে। সব দলের সঙ্গে সংলাপের সময় এক ঘণ্টা হলেও আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সঙ্গে সংলাপ হবে দুই ঘণ্টা।

অশোক কুমার দেবনাথ জানান, প্রতিদিন সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা, দুপুর ১২টা থেকে ১টা, বিকেল আড়াইটা থেকে সাড়ে তিনটা ও বিকেল ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত ৪টি দলের সঙ্গে সংলাপ হবে। সংলাপের আমন্ত্রিত দলগুলোকে ধারাবাহিকভাবে ৭ জুলাই থেকে চিঠি দেওয়া শুরু হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে অশোক কুমার বলেন, সংলাপে নির্ধারিত কোনো আলোচ্যসূচি থাকছে না, আলোচনা হবে উন্মৃক্ত। প্রতিটি কমিশন সংসদ নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করে থাকে। এই কমিশন তারই ধারাবাহিকতায় এই আয়োজন করতে যাচ্ছে।

কোন দলের সঙ্গে কবে সংলাপ

১৭ জুলাই জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) সঙ্গে বৈঠকের মধ্য দিয়ে সংলাপ শুরু হবে। ওই দিন অন্য তিনটি দলের মধ্যে থাকছে— বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ, বাংলাদেশ কংগ্রেস ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগের-বিএমএল।

১৮ জুলাই বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট (মুক্তিজোট), খেলাফত মজলিস ও বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সঙ্গে সংলাপ হবে।

১৯ জুলাই  হবে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, ইসলামী ঐক্যজোট, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস ও বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের (এম.এল) সঙ্গে।

২০ জুলাই গণতন্ত্রী পার্টি ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) সঙ্গে সংলাপ করবে ইসি।

২১ জুলাই বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ও গণফ্রন্ট; ২৪ জুলাই বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন, জাতীয় পার্টি-জেপি (০২), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ; ২৫ জুলাই বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ ও লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি; ২৬ জুলাই জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, বিকল্পধারা বাংলাদেশ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ও ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি); ২৭ জুলাই বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপি, জাকের পার্টি ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ; ২৮ জুলাই গণফোরাম, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাপ ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি এবং ৩১ জুলাই সকালে জাতীয় পার্টি ও বিকেলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংলাপে বসবে নির্বাচন কমিশন।

তালিকা প্রকাশ করে অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার বলেন, ৭ জুলাই থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে সংলাপের চিঠি পাঠানো হবে। প্রতিটি দল থেকে সর্বোচ্চ ১০ জন করে প্রতিনিধি অংশ নিতে পারবেন। এর আগে গত মাসে ইভিএম প্রদর্শণে রাজনৈতিক দলগুলোকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। কিন্তু বিএনপিসহ ১১ দল ইসির এই আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করে।