শাড়ির গল্প

প্রকাশ: ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

সেলিনা হোসেন

আমার শৈশবের পোশাক ছিল ফ্রক। কিশোরী বয়স থেকে কলেজে পড়ার সময় পর্যন্ত সালোয়ার-কামিজ পরেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় শাড়ি পরতে শুরু করি। সেই থেকে শাড়ির পরিবর্তে আর কোনো পোশাক পরিনি। এমনকি ঘুমুনোর সময় ম্যাক্সি পরে ঘুমুতে যাই না। শাড়ি আমার আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকা পোশাক, যে পোশাক বাঙালি সংস্কৃতির উপাদান। পোশাক বৈচিত্র্যে বাঙালির পরিচিতি।

আমি ২০১০ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ইউনেস্কোর এক্সিকিউটিভ বোর্ডে বাংলাদেশের প্রতিনিধি ছিলাম। বছরে দু'বার, চার বছরে আমাকে আটবার প্যারিস যেতে হয়েছিল। শাড়ি ছাড়া আমি অন্য পোশাক পরিনি। এমনকি বরফ পড়া রাস্তায় হাঁটার সময় শাড়িই ছিল আমার পোশাক। আমি এই পোশাকের বাইরে অন্য পোশাকে নিজেকে সাজিয়ে বাঙালি জাতিসত্তার স্বরূপকে খণ্ডিত করিনি। বিদেশে গিয়ে জাতিসত্তার বাইরে নিজের পরিচিতি বদলে ফেলব- এমন মনোভাব আমার মাঝে কাজ করেনি। শাড়ির বিষয়ে দুটি উদাহরণ আমার কাছে দৃষ্টান্ত হয়ে আছে। একটি আমার দেশের, অন্যটি ভারতের।

নিজের দেশের উদাহরণের কথা আগে দিই। এ বছরের ২৭ জুন তারিখে উত্তরার স্কলাসটিকা স্কুলের প্রিন্সিপালের আমন্ত্রণে অতিথি হয়ে গিয়েছিলাম স্কুলের 'গ্র্যাজুয়েশন সিরিমনি' অনুষ্ঠানে। ওই দিন ও লেভেল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রীদের সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়েছিল। চমৎকার সুশৃঙ্খল অনুষ্ঠান ছিল; সঙ্গে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও। অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রছাত্রীরা দু'পাশের দরজা দিয়ে মিলনায়তনের ভেতরে ঢোকে। প্রত্যেকে সমাবর্তনের পোশাক পরে আছে।

খেয়াল করলাম, প্রত্যেক মেয়ে শাড়ির ওপরে সমাবর্তন পোশাক পরেছে। সাধারণত এই বয়সী মেয়েরা শাড়ি পরে না। আমার পাশেই ছিলেন ডিরেক্টর ও অপারেটিং অফিসার ওয়াসীমা পারভীন। তাঁকে বললাম, খুব ভালো লাগছে যে মেয়েরা শাড়ির ওপরে সমাবর্তন পোশাক পরেছে। তিনি বললেন, আমরা ভেবেছিলাম, মেয়েরা ইউনিফর্মের ওপরে সমাবর্তন পোশাক পরবে। কিন্তু ওরা নিজেরা শাড়ি পরার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমরা নিষেধ করিনি। আমার মনে হয়েছে, ওদের জন্য এ একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। আমি মনে করি, শাড়ি আমাদের নিজস্ব আইডেনটিটি। শাড়ির সঙ্গে আমাদের আত্মার সম্পর্ক।

এ কথা শোনার পর ছেলেমেয়েদের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেওয়ার গুরুত্ব আমার কাছে অন্যরকম হয়ে যায়। কারণ শাড়ি আমার প্রিয় পোশাক।

দ্বিতীয় উদাহরণটি ভারতীয় লেখক অরুন্ধতী রায়কে নিয়ে। ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত হয় তার জগৎখ্যাত উপন্যাস ঞযব মড়ফ ড়ভ ংসধষষ :যরহমং. যা তিনি ইংরেজি ভাষায় লেখেন। একই বছরে এই বইয়ের জন্য তিনি বুকার প্রাইজ লাভ করেন। কোনো এক সময়ে তাঁর একটি সাক্ষাৎকার পড়েছিলাম। সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীর প্রশ্নটি ছিল এমন : আপনি তো প্রায় সব সময় জিন্স, ট্রাউজার, শার্ট, টি-শার্ট ইত্যাদি পরেন। কিন্তু আপনি বুকার পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে শাড়ি পরেছিলেন। কেন?

অরুন্ধতী রায় বলেছিলেন, আমি আমার জাতীয় পোশাক পরেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়াকে গৌরব মনে করেছি।

অরুন্ধতী রায়ের এই উত্তর পত্রিকা থেকে জেনেছি। আমাদের মেয়েরা যেভাবে প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে, অরুন্ধতী রায়ও একইভাবে বলেছেন। বিষয়টিতে মর্যাদা ও আইডেনটিটির প্রশ্ন ছিল।

যখন মানুষের কাপড় সেলাই করে পোশাক তৈরির জ্ঞান হয়নি, তার আগে থেকেই শাড়ির ব্যবহার শুরু হয়েছিল বলে মনে করেন ইতিহাসবিদরা। কারণ শাড়ি সেলাইবিহীন লম্বা এক খণ্ড বস্ত্র। এক প্যাঁচে শাড়ি পরেছে নারী কয়েকশ' বছর ধরে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিশুকন্যাদের ছবি পাওয়া যায় বাবার সঙ্গে কিংবা আলাদা, যখন ওই বালিকা বয়সী মেয়েরা এক প্যাঁচে শাড়ি পরে আছে। আজকাল যে ধরনের শাড়ি পরেন নারীরা, সে ধরনটি চালু করেছিলেন ঠাকুরবাড়ির পুত্রবধূ জ্ঞানদানন্দিনী দেবী। উপমহাদেশের পাঁচটি দেশ- শ্রীলঙ্কা, নেপাল, ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশে নারীরা শাড়ি পরেন। তবে একেক জায়গায় একেক রকম। এতে শাড়ি পরার ধরনে বৈচিত্র্য প্রকাশ পেয়েছে। সংস্কৃতির মাত্রায় ভিন্নতা যুক্ত করেছে এই বৈচিত্র্য। যাকে কালচারাল ডাইভার্সিটি বলা যায়।

এক সময় মসলিন তৈরির কারণে আঙুল কেটে দেওয়া হয়েছিল কারিগরদের। জামদানি শাড়ি তৈরি হয়েছে বাংলাদেশে। এই শাড়ি এখন বিশ্বের বাজারে প্রচলিত। ইউনেস্কোতে এই শাড়ির পেটেন্ট দাবি করছে ভারত- এমন বিতর্কের কথা শুনছি। তবে এখনও মীমাংসা হয়নি। জাতীয় থেকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে শাড়ি বিশেষত্ব লাভ করেছে। কিছুদিন আগে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশে এসেছিলেন। শুনেছি, তিনি কয়েকটি জামদানি শাড়ি উপহার পেয়েছেন। আন্তর্জাতিক সম্প্রীতির জায়গাতেও উপহার হিসেবে থাকে শাড়ি। মর্যাদার দিক থেকে শাড়ির বিকল্প নেই।

ঈদ উৎসবে দেখা যায়, পোশাক বৈচিত্র্যে ভরে যায় শহরের দোকানগুলো। দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে দিতে পোশাকে বৈচিত্র্য এসেছে দক্ষিণ এশিয়ার নারী সমাজের মধ্যে। তরুণ প্রজন্মের ফ্যাশন হাউস গড়ে তোলা এই বৈচিত্র্যকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। শাড়ির বৈচিত্র্য বেড়েছে উপকরণের চাকচিক্য, রঙের বিন্যাস ও ডিজাইনের চমকে। এ সময়ের মেয়েরা শাড়ি পরার অভ্যাস কমিয়েছে- এটা আজকের সময়ের এক ধরনের অভিযোগ। চারপাশে এমনই দেখতে পাই, এটাও সত্যি।

তবে বলতেই হবে, শাড়ি শাড়িই। কোনো পোশাকই একে প্রতিস্থাপন করে, মুছে ফেলতে পারবে না। লেখার শুরুতেই এই সময়ের মেয়েদের একটি উদাহরণ দিয়েছি। যারা ইউনিফর্মের ওপর সমাবর্তন পোশাক চাপায়নি, তারা বেছে নিয়েছে নিজেদের ঐতিহ্যের পোশাক। নিজস্ব ঐতিহ্যকে জীবনের বাঁকবদলের লগ্নে আপন সত্তায় গেঁথে নিয়েছে। এই প্রজন্মেরই তারা। তাদের পদক্ষেপে ভুল ছিল না।

ফ্যাশন হাউস গড়ে তোলা প্রজন্মেরও হিসেবে ভুল নেই। উৎসব আয়োজনে তারা নানা বিন্যাসে তৈরি করে শাড়ি। শাড়ির গতি বাড়ে, ব্যবহার বাড়ে। উৎসব আনন্দমুখর হয়। ব্যবহারিক প্রয়োজন কিংবা ফ্যাশনের তাগিদে যে পোশাকই বাজারে আসুক না কেন, তা শাড়ির বিকল্প হবে না কোনোদিনই। নারী নিজেদের পছন্দে শাড়ির ভুবন টিকিয়ে রাখবে। তাকে রাখতেই হবে। শুধু শহরের মধ্যবিত্ত বা বিত্তশালীরাই সমাজ নয়। আমরা ভুলে যাই না, গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের নারীরাও শাড়ি পরেন। তাদের জন্যও নানা ডিজাইনের সুলভ মূল্যের শাড়ি তৈরি করেন মিল মালিকরা।

কখনও এমন ফোন পাই নারীদের কোনো আসর থেকে- আজ আমরা ঠিক করেছি, সবাই জামদানি শাড়ি পরব। আপনিও জামদানি পরে আসবেন কিন্তু!

এ কোনো অন্যায় আবদার নয়। নিজেদের পোশাকের আনন্দ আয়োজন। আমি শাড়ি ভালোবাসি, তা তাঁতের শাড়ি, জামদানি, গরদ, সিল্ক্ক যা-ই হোক না কেন। বিশ্বের যেখানেই যাই আমি, শাড়ি পরেই যাই। মনে করি, দেশটি ছোট্ট তো কী হয়েছে- যুদ্ধ করে স্বাধীন করা দেশ। এর সাংস্কৃতিক স্বাতন্ত্র্য বিশ্বে পরিচিত। একে ধরে রাখবে এবং এগিয়ে নিয়ে যাবে এ প্রজন্মের মেয়েরা।

শাড়ি আমাদেরই পোশাক। হারিয়ে যাওয়ার নয়।
সর্বোচ্চ ৬৫ আসনে ছাড় দেবে বিএনপি

সর্বোচ্চ ৬৫ আসনে ছাড় দেবে বিএনপি

একাদশ সংসদ নির্বাচনে জোট শরিকদের মধ্যে আসন বণ্টন নিয়ে মহাসংকটে ...

গ্রামাঞ্চল পাবে শহরের সুবিধা

গ্রামাঞ্চল পাবে শহরের সুবিধা

গ্রামাঞ্চলকে শহরের সুবিধায় আনতে ব্যাপক পরিকল্পনা রয়েছে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ...

প্রত্যাবাসন আজ শুরু হচ্ছে না

প্রত্যাবাসন আজ শুরু হচ্ছে না

বহুল প্রতীক্ষিত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া আজ বৃহস্পতিবার শুরু হচ্ছে না। ...

ডায়াবেটিস থেকে শিশুদের রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে

ডায়াবেটিস থেকে শিশুদের রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে

ঘাতক ব্যাধি ডায়াবেটিস থেকে শিশুদের রক্ষা করার আহ্বান জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ ...

লোকজ সুরে খুঁজে পাই প্রাণের স্পন্দন

লোকজ সুরে খুঁজে পাই প্রাণের স্পন্দন

'লোকগানের কথায় রয়েছে জীবনের দিকনির্দেশনা। এর ঐন্দ্রজালিক সুর অদ্ভুত এক ...

দুর্ধর্ষ এক ভাড়াটে খুনির থানায় যাতায়াত!

দুর্ধর্ষ এক ভাড়াটে খুনির থানায় যাতায়াত!

দক্ষ রাজমিস্ত্রি হিসেবেই মিরপুর, ভাসানটেক ও কাফরুল এলাকার মানুষজন চিনতেন ...

নির্বাচন পেছানোর দাবি নিয়ে বসবে নির্বাচন কমিশন: সচিব

নির্বাচন পেছানোর দাবি নিয়ে বসবে নির্বাচন কমিশন: সচিব

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পেছাতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দাবি নিয়ে নির্বাচন ...

ইসির সঙ্গে বৈঠকে নির্বাচন পেছানোর বিরোধিতা আ. লীগের

ইসির সঙ্গে বৈঠকে নির্বাচন পেছানোর বিরোধিতা আ. লীগের

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আবারও পেছানোর বিরোধিতা করেছে আওয়ামী ...