সাহিত্য ও সংস্কৃতি

ঢাকায় অতিথি

মানুষই বর্তমান মানুষই ভবিষ্যৎ

সাক্ষাৎকারে আদোনিস

প্রকাশ: ১৭ নভেম্বর ২০১৭      

দীপন নন্দী

সিরিয়ায় জন্ম হলেও ঘটনাক্রমে তিনি নাগরিকত্ব নেন লেবাননে। সেখান থেকেও ফেরার হয়ে তাকে থিতু হতে হয় প্যারিসে। প্রথাবিরোধী এই কবি আদোনিস। যিনি মানুষকে সঙ্গী করে পথ চলছেন; তার কাছে মানুষই বর্তমান, মানুষই ভবিষ্যৎ। তিনি বলেন, মানুষের পরিচয় হয় তার কাজের মধ্য দিয়ে। আর মানুষ নিজেই সে পরিচয় তৈরি করে। তিনি সেই মানুষের পক্ষে। তিনি সব সময়ই জোর দিয়েছেন ভালো পাঠক গড়ে তোলার ওপর। কারণ মাঝারি মানের পাঠক ভালো সাহিত্যকেও মাঝারি মানে নামিয়ে আনে।

আদোনিস বলে পরিচিত হলেও তার মূল নাম আলী আহমেদ সাঈদ। ঢাকা লিট ফেস্টের সপ্তম আসরের উদ্বোধন করতে তিনি প্রথমবারের মতো এসেছেন বাংলাদেশে।

গতকাল বৃহস্পতিবার লিট ফেস্টের উৎসব আঙিনায় তিনি কথা বলেন সমকালের সঙ্গে। নাতিদীর্ঘ এ আলোচনায় আরব দেশের রাজনীতি, সমসাময়িক কবিতার চালচিত্র, তার কাব্যচরিত্রসহ নানা বিষয় উঠে আসে।

আলাপচারিতার শুরুতেই সাহিত্যজীবনের সূত্রপাত নিয়ে কথা বলেন আদোনিস। তিনি বলেন, আলী আহমদ সাঈদ হিসেবে লেখা শুরু করলেও এ নামে ছাপা হয়নি তার কোনো কবিতা। কিন্তু যখন তিনি নিজেই নিজের নাম পাল্টে আদোনিস রেখে এ নামে লিখতে শুরু করেন, তখন লেখাগুলো ছাপা হতে থাকে। গ্রিক দেবতা অ্যাডোনিস যেমন আক্রমণের মুখোমুখি হয়েছিলেন, তিনিও যেন তেমনি পত্রিকার সম্পাদকদের কাছে আক্রান্ত হচ্ছিলেন। সে জন্যই এ ছদ্মনাম ধারণ করেন তিনি।

কবিতাকে নিজের দ্বিতীয় মা হিসেবে আখ্যায়িত করে এই কবি বলেন, ঢাকার মতো এত আলো ঝলমলে স্থানে নয়, সিরিয়ার ছোট্ট গ্রামে তার জন্ম হয়েছিল। মক্তবে পড়ার ফলে ছেলেবেলাতেই পড়তে শিখেছিলেন কোরআন শরিফ। তবে বাবার কল্যাণে পরিচয় ঘটে আরবের কবিতার সঙ্গে। তখন থেকে জন্মদাত্রী মায়ের পাশাপাশি কবিতা তার দ্বিতীয় জননী হয়ে ওঠে।

আরব দেশগুলোর চলমান সংকট নিয়ে আদোনিস বলেন, এখানকার মূল সমস্যা ধর্ম ও রাজনীতি এখানে ভিন্ন নয়। একটির দুর্বৃত্তায়নে দুটিই দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। কিন্তু এমনটি হওয়া উচিত নয়। কারণ ধর্ম ও রাজনীতি দুটিই ভিন্ন সত্তা। তিনটি বিষয়- মানবাধিকার, স্বাধীনতার চেতনা এবং নারীর স্বাধীনতাকে ঘিরে সমাজকাঠামো বিকশিত হওয়া উচিত।

মধ্যপ্রাচ্যে সংঘটিত 'আরব বসন্তে'র তীব্র সমালোচনা করে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র নিজের প্রয়োজনে 'আরব বসন্ত' সৃষ্টি করেছিল। লিবিয়া, ইরাক, ইরানসহ আরব দেশগুলোর দারিদ্র্য দূর করার কথা থাকলেও, সত্যিকার অর্থে অভাব এতে দূর হয়নি। বরং মধ্যপ্রাচ্যে দারিদ্র্য আরও বেড়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির কারণেই মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর অর্থনৈতিক ব্যবস্থা ভেঙে পড়ছে।

অনেক কবিই এখন ক্ষমতাসীনদের স্তুতিতে মেতে ওঠেন; তাদের প্রতি উষ্মা জানিয়ে আদোনিস বলেন, যে কবিতা ক্ষমতাসীনদের কথা বলে, তাদের স্তুতিতে মেতে থাকে, সেসব কবিতার কোনো গুরুত্ব নেই। এসব কবিতার শক্তি নেই। কাব্যসাহিত্যের ধারাতেও এগুলো কখনও যুক্ত হতে পারে না।

আদোনিস তার লেখায় 'মিহিয়া' নামের একটি চরিত্র বারবার তুলে এনেছেন। এ চরিত্র দিয়ে তিনি মূলত নিজের কথাই বলেন। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, মিহিয়া তার নিজেরই রূপ। সে মানবতার কথা বলে। রাজনৈতিক ভাষ্য দেয়। সমালোচনা করে। তার ভেতর দিয়ে তিনি কবিতা ও সংস্কৃতিকে নতুন করে পড়ে নেওয়ার আহ্বানও জানান।

বিশ্বব্যাপী তরুণদের পাঠাভ্যাস কমে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে আদোনিস বলেন, তরুণদের পাঠাভ্যাস নিয়ে তিনি হতাশ নন, বরং আশাবাদী। মানুষ এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি পড়ছে। শুধু বই নয়, তাদের পাঠাভ্যাস গড়ে উঠছে নানা মাধ্যম দিয়ে।

১৯৩০ সালের ১ জানুয়ারি সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলের আল কোয়াসবিন লাটাকিয়া এলাকায় আদোনিসের জন্ম। রাজনীতিনির্ভর আর আরব ঐতিহ্যনির্ভর কাব্যধারার এ কবি ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠা করেন কাব্যপত্রিকা 'মাওয়াকিফ'। আরবি ভাষায় তিনি ২০টিরও বেশি বই লিখেছেন। এর বেশিরভাগই পরে ইংরেজিতে অনুবাদ হয়েছে। তার লেখা বইয়ের মধ্যে 'আদোনিস', 'দ্য পেজেস অব ডে অ্যান্ড নাইট', 'এ টাইম বিটুইন অ্যাশেজ অ্যান্ড রোজেস' উল্লেখযোগ্য। এই কবি গ্যেটে পুরস্কার ছাড়াও নাজিম হিকমত কাব্য পুরস্কার এবং ব্রাসেলসে সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক কবিতা পুরস্কার পেয়েছেন। ১৯৮২ সালে তিনি প্যারিসের এস্তেফান মালার্মে একাডেমির সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৫ সালে তিনি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেয়েছিলেন। আদোনিস একজন শিক্ষাবিদও। ইউনিভার্সিটি অব লেবাননের আরবি সাহিত্যের অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দামেস্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে অধ্যাপনা করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন

উন্নয়ন বনাম 'এরশাদ'

উন্নয়ন বনাম 'এরশাদ'

নব্বইয়ের গণঅভ্যুত্থানের পর রংপুর শহরের যে কোনো ভোটে কখনোই হারেনি ...

 জনশক্তি রফতানিতে বিশৃঙ্খলা দালালদের দাপট

জনশক্তি রফতানিতে বিশৃঙ্খলা দালালদের দাপট

জনশক্তি রফতানি বছর বছর সংখ্যায় বাড়লেও, আসেনি শৃঙ্খলা। চলতি বছরে ...

মহাজোটে মহাজট বিএনপিতে বাগ্‌যুদ্ধ

মহাজোটে মহাজট বিএনপিতে বাগ্‌যুদ্ধ

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন নিয়ে বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদী) আসনে আওয়ামী ...

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে ১৯ কূটনীতিক

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে ১৯ কূটনীতিক

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন ১৮ দেশের ১৯ জন ...

'বিদেশগামীদের কাছে বাড়তি টাকা নিলে ব্যবস্থা'

'বিদেশগামীদের কাছে বাড়তি টাকা নিলে ব্যবস্থা'

অভিবাসন ব্যয় কমানোর লক্ষ্যে বিদেশগামী কর্মীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা ...

আইনজীবীর সাজা, বীরগঞ্জের সাবেক এসিল্যান্ডকে তলব

আইনজীবীর সাজা, বীরগঞ্জের সাবেক এসিল্যান্ডকে তলব

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বাকবিতণ্ডার জের ধরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জ্যেষ্ঠ এক ...

এমপির মেয়েকে ছুরিকাঘাতে আটক হয়নি কেউ

এমপির মেয়েকে ছুরিকাঘাতে আটক হয়নি কেউ

বাগেরহাটে শনিবার সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি হ্যাপী বড়ালের মেয়ে অদিতি ...

শিবপুরে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে ২ কিশোরীকে ধর্ষণ!

শিবপুরে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে ২ কিশোরীকে ধর্ষণ!

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলায় দুই কিশোরীকে কোমলপানীয়র সঙ্গে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে ...