চবিতে উত্তরপত্র পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় জিডি

প্রকাশ: ১৭ মে ২০১৮      

চবি প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তিন সেমিস্টারের সাত শতাধিক উত্তরপত্র পুড়িয়ে নষ্ট করার ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার হাটহাজারি থানায় এ জিডি করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা প্রধান (ভারপ্রাপ্ত) মো. বজল হক।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর লিটন মিত্র বলেন, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে উত্তরপত্র পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে হাটহাজারি থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার রাতে সভাপতির অফিস কক্ষে ঢুকে বিভাগটির তিন সেমিস্টারের নয়টি কোর্সের মোট ৭০৯ টি খাতা চুরি করে পুড়িয়ে ফেলে দুর্বৃত্তরা। এর মধ্যে তৃতীয় সেমিস্টারের দুটি কোর্স , পঞ্চম সেমিস্টারের চারটি ও সপ্তম সেমিস্টারের তিনটি কোর্সসহ মোট নয়টি কোর্সের উত্তরপত্র ছিল।

বিভাগের সভাপতির কক্ষে থাকা সি সি ক্যামেরাটি মঙ্গলবার রাত ১২ টা ৫৫ সেকেন্ডে বন্ধ হয়ে যায়। পরীক্ষার উত্তরপত্রগুলো কোডিং করে প্রথম পরীক্ষককে বুঝিয়ে দেয়ার আগেই দুর্বৃত্তরা পুড়িয়ে ফেলে। সভাপতির কক্ষ, অফিস কক্ষ ও স্টোর রুমের তিনটি তালা পাওয়া যায়নি। পাশাপাশি সভাপতির কক্ষের একটি ড্রয়ারও খোলা অবস্থায় পাওয়া যায়। এছাড়া বিভাগের সেমিনার লাইব্রেরি রুমের মূল দরজাটি বাইরে তালাবদ্ধ থাকলেও ভিতর থেকে বন্ধ পাওয়া যায়। অপর দুটি দরজা খোলা পাওয়া যায়। সেমিনার কক্ষের ওই দুই দরজা দিয়ে ছাদের সাথে সংযোগ রয়েছে বলে জানায় বিভাগ সূত্র। ওই কক্ষেই দুর্বৃত্তরা আগে থেকে আড়ি পেতে ছিল বলে ধারণা করছেন বিভাগ সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া ইঞ্জিনিয়ারিং সায়েন্স অনুষদের প্রথম তলা থেকে দ্বিতীয় তলা পর্যন্ত ঝুলানো একটি দড়ি পাওয়া যায়।

এদিকে এ ঘটনার জন্য সন্দেহের তীর বিভাগের দুই শিক্ষার্থীর দিকে। ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা থাকতে পারে বলে মনে করছে বিভাগ সংশ্লিষ্টরা। 

ওই কোর্সের পরীক্ষার দিন হলে নিজেদের খাতা পরিবর্তনের দায়ে দুই শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেননি কর্তব্যরত পরীক্ষকরা। এর রেশ ধরে তারা এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে ধারণা করছেন বিভাগটির বেশ কয়েকজন শিক্ষক।    

অন্যদিকে এ ঘটনার পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত শিক্ষকরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষকের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। 

তারা বলেন, ‘প্রায় প্রত্যেক ফ্যাকাল্টির নিরাপত্তায় রাতে নিয়োজিত থাকেন দুইজন প্রহরী। কয়েকটি অনুষদে তিনজন প্রহরী থাকেন। এত কম সংখ্যক প্রহরী দিয়ে কিভাবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়? এখানে আমাদের অনেক কাগজপত্র থাকে, অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস থাকে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা প্রধান (ভারপ্রাপ্ত) মো. বজল হক সমকালকে বলেন, বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। নিরাপত্তা প্রহরী বৃদ্ধির বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতোমধ্যে আমি বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।

আরও পড়ুন

খাগড়াছড়িতে আধাবেলা সড়ক অবরোধ চলছে

খাগড়াছড়িতে আধাবেলা সড়ক অবরোধ চলছে

ইউপিডিএফের নেতাকর্মীসহ ৬ জনকে হত্যার প্রতিবাদে ও হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে সোমবার ...

ফেনীতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

ফেনীতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

ফেনীতে র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। সোমবার ভোরে ...

ছাগলনাইয়ায় গরুর ট্রাকের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে নিহত ৬

ছাগলনাইয়ায় গরুর ট্রাকের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে নিহত ৬

ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলায় গরুবোঝাই ট্রাকের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে দুই শিশুসহ ...

রায়ের প্রতীক্ষা শেষ হচ্ছে

রায়ের প্রতীক্ষা শেষ হচ্ছে

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে চালানো ...

মহাসড়কে স্বস্তি ভোগান্তি ট্রেনে

মহাসড়কে স্বস্তি ভোগান্তি ট্রেনে

ঈদযাত্রায় দুর্ভোগের শঙ্কা ছিল। সড়কে নামার পর তা যে একেবারে ...

৫৭ হাজার শূন্যপদে শিগগিরই নিয়োগ

৫৭ হাজার শূন্যপদে শিগগিরই নিয়োগ

সরকারি প্রতিষ্ঠানে অনেক শূন্য পদ রয়েছে। এসব পদ পূরণে পদক্ষেপ ...

সিসিটিভি ফুটেজে মিলেছে হামলাকারীর চেহারা

সিসিটিভি ফুটেজে মিলেছে হামলাকারীর চেহারা

ছোট শহর খাগড়াছড়ি। পুরো শহরের বেশিরভাগ জনাকীর্ণ এলাকা পুলিশের সিসিটিভির ...

দোকানে মাইক্রো ঢুকে প্রাণ গেল শিশুর

দোকানে মাইক্রো ঢুকে প্রাণ গেল শিশুর

মাদারীপুরে একটি মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে মুদি দোকানের ভিতরে ...